ভিজিট করুন নতুন ও স্হায়ী ব্লগ www.alomoy.com, it.alomoy.com

মানবতাকে শান্তি উপহার দিচ্ছে ইসলাম (Islam Offers Peace to Humanity)


ইসলাম হচ্ছে পৃথিবীতে মানবতার শান্তি অর্জনের একমাত্র অবলম্বন। মানুষ ইসলামকে বাদ দিয়ে যত ভাবেই চেষ্টা করবে নিজেদের গড়া আইন দিয়ে কখনো মানবতাকে চূড়ান্ত ও প্রকৃত শান্তি দিতে পারবেনা। কারণ মানুষের গড়া আইন গুলোতে থাকে নিজেরই স্বার্থেরই বহিপ্রকাশ। সে নিজের স্বার্থের উর্ধে চিন্তা করে আইন করতে পারেনা। আবার তার সামগ্রিক জ্ঞান না থাকায় সে নিজেই বোঝেনা ঠিক কোনটা তার দরকার, কোনটা তার ভাল বয়ে আনবে। আবার দেখা যায় সে নিজের একজনের কল্যাণ বের করে নিলেও শতজনের ক্ষতি ডেকে আনে।

পৃথিবী হচ্ছে পরকালের জন্য পরীক্ষা। মূলত আল্লাহ মানুষকে পরীক্ষার জন্যই এখানে পাঠিয়েছেন কে কেমন আমল করে তা দেখার জন্য- (সুরা মুলক, ৬৭:০২)

الَّذِي خَلَقَ الْمَوْتَ وَالْحَيَاةَ لِيَبْلُوَكُمْ أَيُّكُمْ أَحْسَنُ عَمَلًا

 অর্থ-” তিনিই সৃষ্টি করেছেন জীবন ও মৃত্যু দেখতে তোমাদের কে ভালো কাজে অগ্রণী “

পরীক্ষায় যেন সে কৃতকার্য হতে পারে এ জন্য যুগে যুগে পাঠিয়েছেন অসংখ্য নবী রাসুল আ.।
 প্রত্যেক যুগের প্রত্যেক জাতির কাছেই পৌঁছেছিল তাদের মাধ্যমে আল্লাহ পক্ষ থেকে  পথপ্রদর্শনের বাণী্।
(সুরা রা”দ, ১৩:৭)

 وَلِكُلِّ قَوْمٍ هَادٍ


 অর্থ:  “প্রত্যেক জাতির জন্যই পথপ্রদর্শক ছিলেন”

(সুরা রা”দ: ১৩:৩৮)

 لِكُلِّ أَجَلٍ كِتَابٌ


অর্থ: “প্রত্যেক যুগের জন্যই পুস্তক রয়েছে”

”তাঁদের মাধ্যমে মানবতাকে দিয়েছিলেন ইহ ও পরকালে শান্তি অর্জনের চাকিকাঠি। কিন্তু সেই আদম আ. এর কাল থেকেই কিছু মানষের এ নীতি ভাল লাগেনি। কারণ তারা তাদের সংকীর্ণ স্বার্থচিন্তার বেড়াজালে আটকে ছিল। আর যারা এ আহ্বান গ্রহণ করেছিল তাদেরও কেউ কেউ পথভ্যষ্ট হয়ে গিয়েছিল। কুরআন হচ্ছে আল্লাহর পক্ষ থেকে মানবতার প্রতি সর্বশেষ শান্তির বাণী্। পূর্বেও পরিবেশ, পরিস্থিতি, প্রেক্ষাপট ও অঞ্চল পাল্টানোর সাথে আল্লাহর বাণীতে কিছু পরিবর্তন থাকত। তবে মৌলিক বাণী আল্লাহর একত্ববাদ সবার কাছেই পৌঁছেছিল। নতুন বাণী আসার সাথে সাথে আগের বাণী বাতিল হয়ে যেত।

কিন্তু কালের বিবর্তনে অনেকে বাণীবাহকদের অধিক মর্যাদা দিতে গিয়ে আল্লাহর সমকক্ষ দাঁড় করে ফেলল।
যদিও রাসুল অ. তাদেরকে এটা করতে বলেননি। তবুও সেই পুরাতনকে আঁকড়ে থাকতে শুরু করল যা নির্দিষ্ট সময়ের জন্য আসার কারণে নতুন নতুন সমস্যার মোকাবেলা করতে পারছিলনা। উহুদিরা ভুল করল যখন তারা হযরত মুসা আ. এর ফলে কোন রাসুলকে মেনে নিতে অস্বীকার করল। খিষ্টানরাও একই ধরণের ভুল করল হযরত ঈসা আ. কে অতরিক্ত ও মনগড়া ভক্তি করতে গিয়ে যখন তারা তাঁকেই অন্ধভাবে মেনে যেতেই থাকলো। অথচ তাঁকে পাঠানো হয়েছিল শুধু মাত্রে পথভ্রষ্ট বনী ঈসরাঈলদের পথপ্রদর্শনের জন্য যা বাইবেলেই উল্লেখ আছে।


কিন্তু কুরআন হচ্ছে এর নাযিলের পর থেকে শুরু থেকে পৃথিবীর সকল জাতির, সকল কালের মানুষের জন্য শান্তি অর্জনের বাণী ও পথ। এরপরও আধুনিক যেসব সমস্যার নির্দিষ্ট সমাধান কুরআনে ও এর হাদিছে পাওয়া যাবেনা সেগুলো কুরআন ও হাদিছের ভিত্তিতে আলোচনার মাধ্যমে সমাধানে পৌঁছার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও বলা হয়েছে- (সুরা নাহল, ১৫:৪৩ ও সুরা আম্বিয়া, ২১:০৭

فَاسْأَلُوا أَهْلَ الذِّكْرِ إِن كُنتُمْ لَا تَعْلَمُونَ

অর্থ:  “যদি তোমরা না জান তাহলে যে জানে তার কাছে জেনে নাও”

0 টি মন্তব্য:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ইমেইলে গ্রাহক হোন