ভিজিট করুন নতুন ও স্হায়ী ব্লগ www.alomoy.com, it.alomoy.com

দুটি ভূতের গল্প!!

১. এক ছেলে মোটামুটি ভীতু। বন্ধুরা তাকে নিয়ে বেশ মজা করে। একবার তাকে সবাই একটা প্রস্তাব দিল আচ্ছা তোমাকে আর ভীতু বলবনা। শর্ত হচ্ছে গভীর রাতে একা কবরস্হানে গিয়ে একটা খুঁটি গেঁড়ে আসতে হবে। তুমি ফিরে আসলে সবাই মিলে গিয়ে দেখব কথামতো কাজ করেছো কিনা। ছেলেটিতে বদনাম ঘুচানোর লোভে রাজী হলো। তো একদিন গভীর রাতে একটি নির্দিষ্ট খুঁটি নিয়ে সে লুঙ্গি-গেন্জি পরা অবস্থায় চলল কবরস্হানে। খুঁটিও গাড়ল শক্ত করে। কিন্তু বিপত্তি বাঁধল উল্টো ঘুরে ফেরার সময়। সে যতই ফেরতে চায় কে যেন তার লুঙ্গি টেনে ধরে রাখে। গায়ের সমস্ত শক্তি প্রয়োগ করেও সে নিজেকে মুক্ত করতে পারলনা। ভয়ে সে সেখানেই অজ্ঞান হয়ে পড়ে রইল। বন্ধুরাও রাতে আর নিজেরাও কিছু করলনা বা কাউকে জানানোরও সাহস পায়নি। 
পরদিন সকালে গিয়ে দেখা গেল সে এখনো অজ্ঞান হয়ে পড়ে আছে আর খুঁটিটা পোঁতা রয়েছে তার লুঙ্গি ভেদ করে। [নিশ্চয়ই বুঝেছেন সে নিজেই ভুল করে লুঙ্গির উপরই খুঁটি মেরে দিয়েছিল] 

২. একলোক বাজার থেকে আলু নিয়ে সাইকেলে করে বাড়ি ফিরছে। আলুর ব্যাগ রাখল সাইকেলের সামনের হাতলের সাথে। কিছুদূর আসতেই এক অদ্ভূত কাণ্ড। কে যেন পাশ থেকে পায়ের উপর ঢিল মারছে। সে সাইকেল থামাল। চারপাশ দেখল। না, কেউ নেই। যাইহোক, হয়তো মনের ভুল। কিন্তু না, আবারো সাইকেলে চালানো শুরু করতেই আবারো ঢিল। আবারো নেমে পরীক্ষা, না কেউ নেই। পূর্বের ঘটনার মতোই অজ্ঞান। 
সকালে খোঁজাখুজি করে দেখা গেল রাস্তার উপর লোকটা অজ্ঞান হয়ে পড়ে আছে আর তার আলুর ব্যাগটার নিচের দিকে প্রায় আলুর সমান একটা ছিদ্র। নিশ্চয়ই সাইকেলের ঝাঁকুনিতে ঝরে ঝরে পড়ছিল। 

[বি:দ্র আমরা অনেক ক্ষেত্রেই কোন ঘটনার ব্যাখ্যা চিন্তা না করেই ভূতের গায়ে দোষ চাপাই। 
তবে এটা ঠিক একধরণের ক্ষতিকর জিন আছে যারা মানুষের ক্ষতি করার চেষ্টা করে কিন্তু মোটেও ততটা নয় যতটা আমরা সাধারণত তাদের উপর দোষ আরোপ করি।] 

0 টি মন্তব্য:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ইমেইলে গ্রাহক হোন