ভিজিট করুন নতুন ও স্হায়ী ব্লগ www.alomoy.com, it.alomoy.com

কিছু মারাত্মক ও ভয়ঙ্কর সামুদ্রিক জীব

১. বক্স জেলিফিশ (Box Jellyfish বা Chironex)


একে অনেকসময় সামুদ্রিক ভীমরুল বলেও আখ্যায়িত করা হয়। এছাড়াও একে মৃত্যুর বাক্সও বলা হয় (box of death)। এটা সবচেয়ে ভয়ঙ্কর না হলেও অন্যতম ভয়ঙ্কর জীব অবশ্যই। এর আছে লম্বা কর্ষিকা যা নেমাটোসিস্ট ও বিষ বহন করে। এর হুলের আঘাত প্রাণঘাতী হতে পারে এবং মাত্র চার মিনিটেই শিকারকে মেরেও ফেলতে পারে অর্থ্যাৎ সাপের বিষকেও হার মানিয়ে দেয়। এগুলোর বিষ-রোধক এখনো আবিষ্কৃত হয়নি। বাস উত্তর অষ্ট্রেলিয়ায়।

২. নীল বলয়যুক্ত অক্টোপাস: (Blue-Ringed Octopus)


এর আকার লম্বায় সর্বোচ্চ ২০ সে.মি হয়। কিন্তু এই ক্ষুদ্র আকারের জীবটির বিষেরও প্রতিষেধক নেই এখনো। এর কামড় ততোটা বিষাক্ত নয় কিন্তু এর পাশ্বপ্রতিক্রিয়া মারাত্মক বিরূপ। পরিণতিতে অবশ ও ক্রমে মৃর্ত্যুর দিকে শিকারকে ধাবিত হতে হয়। কখনো কখনো অবশ্য শ্বাসযন্ত্র দিয়ে বিষ নিরাময় করা গেছে। তবে এর কামড় অন্যতম প্রাণঘাতী সেটা মানতেই হবে।
এদের বাস উষ্ণ অঞ্চলে। মেজাজের উপর নির্ভর করে গায়ের নীল বলয়ের গাঢ়ত্ব বদলায়।

৩. স্টোনফিশ (Stonefish)


এই ছোট জীবটি লম্বায় সর্বোচ্চ ১২ সে.মি পর্যন্ত হলেও একে সবচেয়ে বিষাক্ত মাছ বলে গণ্য করা হয়। এটি পানির নিচে পাথরের আড়ালে সহজেই নিজেকে মিশিয়ে রাখতে পারে। ফলে ডুবুরিরা যেকোন সময় এর হামলার শিকার হতে পারে কেননা একে খুব কাছ থেকেও দেখতে পাওয়া কষ্টের ব্যাপার।
এর পৃষ্ঠদেশীয় ডানায় সুঁচের ন্যায় কাঁটা প্রাণঘাতী বিষ ঢেলে দিতে সক্ষম। আক্রান্ত স্থানের কোষ মারা যেতে পারে বা স্থানটি ফুলে উঠতে পারে।

৪. স্টিং-রে (Stingrays)


এরা কমই আক্রমণ করে তাছাড়া এদের আক্রমণ হয় পরোক্ষ। তাদেরকে কোনভাবে বিরক্ত করলেই প্রতিরক্ষার খাতিরে তারা পাল্টা আঘাত হানে। বেশিরভাগ স্টিংরে এর আক্রমণ মারাত্মক না হলেও এদের কিছু কিছু প্রাণঘাতী হামলা চালাতে পারে। এদের আক্রমণ বিরল হলেও এরা কতটা প্রতিশোধ-পরায়ণ তার প্রমাণ পাওয়া যায় ২০০৬ এ যখন স্টিভ আইরিন নামে এক লোকের মৃত্যু খবরের শিরোনাম হয়েছিল।


৫. লায়নফিশ Lionfish


এই মাছটি দেখতে খুবই সুন্দর হলেও এর শক্তিশালী বিষের প্রভাব যন্ত্রণাময় হয়। এর বিষাক্ত কাঁটার আঘাত প্যারালাইসিস ও আক্রান্ত জায়গা ক্ষণস্থায়ীভাবে নষ্ট করে ফেলতে পারে।
ক্যারিবিয়ান ও পূর্ব আটলান্টিকে এদের বাস। এদেরকে কোনভাবে উত্তেজিত করলে এরা আঘাত হানে।






দেখাযাচ্ছে এদেরকে না ঘাঁটালে এরা তেমন ভংঙ্কর নয়। তারা জীবিকা ও প্রতিরক্ষার খাতিরেই হামলা চালায়। কিন্তু আমরা মানুষ! নিজের অযৌক্তিক ও অন্যায় স্বার্থের জন্যেও আরেকজনের মারাত্মক ক্ষতি করতেও দ্বিধা করিনা। বিশাল জনগোষ্ঠীর ক্ষতি হবে এমন পদক্ষেপও মানুষ কত সহজে নিতে পারে্!! তাই মানুষ যদি নৈতিক পথে চলে তাহলে সে সত্যিই সৃষ্টির সেরা বলে বিবেচিত হবার যোগ্য অন্যথায় সেই সর্বনিকৃষ্ট।

0 টি মন্তব্য:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ইমেইলে গ্রাহক হোন