ভিজিট করুন নতুন ও স্হায়ী ব্লগ www.alomoy.com, it.alomoy.com

চশমা ছাড়াই দেখতে পাবে চোখের রোগী!

সূত্র: আমারদেশ অনলাইন
গুগল গ্লাস প্রকল্পের উদ্দীপিত বাস্তবতা প্রযুক্তিসহ অন্যান্য কম্পিউটার ডিসপ্লে প্রযুক্তিগুলো বেশ মজার এবং উত্তেজনায় ভরা। কিন্তু যারা দৃষ্টিশক্তির সমস্যার কারণে চশমা ব্যবহার করেন, তাদের জন্য কি এজাতীয় মজার গ্যাজেট উপযুক্ত? চশমা পরলে অনেক মজার ব্যাপার থেকেই এভাবে দূরে থাকতে হয়, তাই অনেকেই বিরক্তি বোধ করেন। এই সমস্যা এড়াতে এক গবেষক দল কাজে লেগেছে। তারা বলছেন, তারা সমস্যাটি সমাধান করতে পারবেন। তারা বলছেন, যদি ছবি বা ভিডিও এমন একটি স্ক্রিনে নিয়ে আসা যায় যা বিশেষভাবে চক্ষু সমস্যায় যারা ভুগছে তাদের জন্য তৈরি, তাহলেই তো সমাধান হয় এই সমস্যা।
এই বিশেষ স্ক্রিন তৈরি করা হবে মাইওপিয়া (দূরের বস্তু দেখতে না পাওয়া), হাইপামেট্রোপিয়া (কাছের বস্তু দেখতে না পাওয়া) এমনকি ছানি পড়াসহ বিভিন্ন চক্ষু রোগীর কথা চিন্তা করে। ফলে হাই পাওয়ারের চশমা ছাড়াই খালি চোখে এই স্ক্রিনে দেখানো যে কোনো কিছু পরিষ্কার দেখতে পাবে তারা।
অনেকেই চশমা পরতে পছন্দ করেন না, তাদের জন্য চমত্কার একটি অপশন হতে পারে এই প্রকল্পিত ডিভাইসটি। গাড়ির ড্যাশ বোর্ডসহ বিভিন্ন স্থানে এই প্রযুক্তি ব্যবহার করে মানুষের চশমা থেকে মুক্তি মিলতে পারে। কথাগুলো বলেন ‘আইনেত্র’ নামের একটি চক্ষুসেবা প্রতিষ্ঠানের সহ-প্রতিষ্ঠাতা, কম্পিউটার বিজ্ঞানী ভিটর পাম্পলোনা। গবেষক দলের সঙ্গে ৮ আগস্ট তিনি এই বিষয়ে একটি গবেষণাকর্ম SIGGRAPH সম্মেলনে প্রদর্শন করেন।
একটি স্মার্টফোন বা অন্য কোনো ডিভাইস যখন সামনে ধরা হয়, তখন সাধারণ দূরত্বে থাকলেও মাইওপিয়া রোগীর তা দেখতে সমস্যা হয়। কারণ তার চোখের স্পষ্ট দর্শনের নিকট বিন্দু চোখের আরও কাছে। মোট কথা, একটু দূরের যে কোনো কিছু দেখতে সমস্যা হয় এধরনের রোগীর।
যে জিনিসটি দেখতে চাচ্ছেন, তার আকৃতির ওপরও বিষয়টি নির্ভর করে। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, একই দূরত্বে রাখা কোনো বড় ফন্টের একটি লেখা দেখতে পেলেও তার চেয়ে ছোট ফন্টের লেখা দেখতে পাবেন না মাইওপিয়া রোগী।
চোখের সামনে তারা যখন ফোনটি ধরবেন, তখন ফোনটি বাস্তবে যেখানে আছে তার চেয়ে আরও কাছের কোনো একটি বিন্দুতে চোখ ফোকাস করবে, ফলে মানুষটি ফোনের (বা অন্য যে কোনো কিছুর) সঠিক আকৃতি বুঝতে পারবে না। এর ঠিক উল্টো ঘটনা ঘটে হাইপারমেট্টোপিয়া রোগীর ক্ষেত্রে। তারা ফোকাস করে প্রকৃত অবস্থানের চেয়ে দূরে। ফলে তারা কাছে থাকা যে কোনো কিছু দেখতে সমস্যায় পড়ে। বুঝতেই পারছেন, আপনি যদি ক্যামেরায় ‘আউট অব ফোকাস’ কোনো ছবি তোলেন, তা আপনার চোখে যেমন দেখায়, খালি চোখে বাস্তব পৃথিবীকে সেরকমই লাগে ক্ষতিগ্রস্ত চোখের মানুষের কাছে।
এই সমস্যা সমাধানে পাম্পলোনা মানুষের চশমার প্রেসক্রিপশন নিয়ে খুঁজে বের করে মানুষটি খালি চোখে বস্তুর সামনে বা পেছনে শূন্যের ঠিক কোনো অবস্থানে দৃষ্টি ফেলে। তখন তার প্রোগ্রাম করা ডিভাইসটি সেই স্থানে ছবি ফেলে, ফলে মানুষটি শূন্যস্থানে ওই ছবির একটি ভার্চুয়াল পিক্সেল দেখতে পায়। এভাবে চশমা ছাড়াই সে পরিষ্কার দেখতে পারে।
এই পদ্ধতিতে মাত্র একজন লোকের জন্য একটি ডিভাইস ডিজাইন করতে হবে ব্যাপারটি এমন নয়। বিভিন্ন মানুষ এ ধরনের একটি ডিভাইস শেয়ার করতে পারবে, জানান পাম্পলোনা। তিনি আরও জানান, সেক্ষেত্রে প্রত্যেককে তাদের ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট খুলে তাতে নিজের প্রেসক্রিপশনের তথ্যাদি যোগ করতে হবে। এই ইমেজ অ্যাডজাস্টিং প্রোগ্রাম অ্যাকটিভ করতে হলে সেই নির্দিষ্ট অ্যাকাউন্ট থেকে লগ-ইন করতে হবে। এভাবে বিভিন্ন অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে একটি ডিভাইস ব্যবহার করতে পারবে অনেকে, জানান পাম্পলোনা। তবে এই প্রযুক্তি এখনও পর্যন্ত গবেষণার প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে।

0 টি মন্তব্য:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ইমেইলে গ্রাহক হোন