ভিজিট করুন নতুন ও স্হায়ী ব্লগ www.alomoy.com, it.alomoy.com

বাংলাদেশে পূঁজার ছুটি আছে, আমেরিকা ইউরোপে ঈদের ছুটে নেই কেন?

আজকে নয়াদিগন্তে 'যুক্তরাষ্ট্রে কোরবানির প্যাকেজ ফর্মুলা' শিরোনামের খবর পড়তে গিয়ে জানলাম যুক্তরাষ্ট্রে ঈদের নামাজ পড়েই কাজে যোগ দিতে হয়, তার অর্থ ছুটি নেই। কৌতুহল জাগল। আমাদের দেশে ৯০% মুসলিমের পাশাপাশি হিন্দু ৯ শতাংশ ও বাকী ১ শতাংশ খ্রিষ্টান ও বৌদ্ধ [উইকিপিডিয়া] ২০১২ সালেও ছুটির তালিকা প্রকাশ করলে দেখা যায় ৯ শতাংশ হিন্দুদের জন্য বিভিন্ন ছুটি ছাড়াও মাত্র ১ শতাংশ খ্রিষ্টান ও বৌদ্ধদের জন্যও যথাক্রমে ৪ জুন বুদ্ধ পূর্ণিমা ও ২৫ ডিসেম্বর যীশু খ্রিস্টের জন্মদিনকে (বড়দিন) সাধারণ ছুটি হিসেবে রাখা হয়েছে। {বিডিনিউজ} । এতে আমি মন খারাপ করিনা। ইসলামও তো অমুসলিমদের এমন অধীকার স্বীকার করে। যাইহোক খবরটি পড়ে আমেরিকা ইউরোপে মুসলমানরা ঈদের ছুটি পায় কিনা দেখার কৌতুহল জাগল।
আমেরিকাঃ

আমেরিকায় .৬% মুসলিমের বাস তার মানে প্রায় সংখ্যায় প্রায় ১৯ লাখ।উইকিপিডিয়া (বাংলাদেশে খ্রিষ্টান ও বৌদ্ধ মিলিয়ে ১%, তার অর্থ ধর্মদ্বয় নিজস্ব শতাংশে প্রায় .৫% যা আমেরিকায় মুসলিম হারের চেয়ে কম) দেখলাম আমেরিকার কেন্দ্রীয় ছুটি তালিকায় ঈদের কোন ছুটি নেই। [উইকিপিডিয়া]।
প্রথমে ভাবলাম হয়তো কোন ধর্মীয় ছুটিই নেই। কিন্তু দেখা গেল বড়দিনের ছুটি আছে। কেন্দ্রীয় তালিকায় না পেয়ে ধর্মীয় ও ঐতিহ্য বিষয়ক ছুটির তালিকায় দেখে দেখা গেল খ্রিষ্টের জন্মের ১২তম দিন উপলক্ষে Epiphany ছুটি আছে ৬ জানুয়ারিতে, Orthodox Christmas এর জন্য একই মাসের ৭ তারিখে, ছুটি আছে ইতিহাসের কলঙ্কিত অধ্যায় এপ্রিল ফুল দিবসেও !!!!, {উইকিপিডিয়া}
এছাড়াও যীশুর জেরুজালেমে প্রবেশ উপলক্ষে পাম সানডে , বিতর্কিত ক্রুশবিদ্ধ হওয়া উপলক্ষে গুড ফ্রাইডে, তথাকথিত পুনরুথান উপলক্ষে ঈস্টার, বড়দিনের জন্য ২৪ ডিসেম্বর ও বড়দিনের সম্মানে আগেই ব্ল্যাক ফ্রাইডের জন্যে ছুটি আছে। পাশাপাশি ১.৭ শতাংশ ইহুদিদের জন্যে রয়েছে হিব্রু ক্যালেন্ডার অনুযায়ী Passover, তথাকথিত Sabbath of rest উপলক্ষে Yom Kippur ছুটি ও Hanukkah উপলক্ষে ছুটি।  
কিন্তু .৬ শতাংশ মুসলিমের জন্যে ঈদের ছুটি নেই!!!!

যুক্তরাজ্যঃ যুক্তরাজ্যে ৭১.৬ শতাংশ খ্রিষ্টান ও দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ধর্মানুসারী মুসলিম ২.৮ ভাগ ।{উইকিপিডিয়া} সেদেশেও গুড ফ্রাইডে, ঈস্টার মানডে এবং ক্রিসমাস বা বড়দিন উপলক্ষে ২৫ ডিসেম্বর ছুটি আছে। কিন্তু ঈদের ছুটি নেই ২.৮ ভাগ মুসলিমের জন্যে!!!! ব্যাংক ছুটি আছে মোট নয় দিন। সে তালিকায়ও দুটি ধর্মীয় ছুটি আছে, কিন্তু সাড়ে ১৭ লাখ মুসলমানদের জন্য নয়!!!

ফ্রান্সঃ ফ্রান্সে প্রায় ৫০-৬০ লাখ মুসলিম বাস করেন যা জনসংখ্যার প্রায় ৮-১০ %। উইকিপিডিয়া। ফ্রান্সে ঈশ্বরে বিশ্বাসী লোকের হারই মাত্র ৩৪ %{প্রাগুক্ত} সেখানে ৮-১০% মুসলিমদের সংখ্যা অবশ্যই উল্লেখযোগ্য। কিন্তু ছুটির হিসাবে দেখা যায় গুড ফ্রাইডে, ইস্টার মানডে ও বড়দিনের জন্যে ছুটি আছে, তবে মুসলিমদের জন্যে কোন ছুটি নেই।

একটু ভাবুনঃ অনেকে হয়তো বলবেন সেসব দেশ উন্নত । তাই মুসলিমদের মত ক্ষুদ্র সম্প্রদায়ের জন্যে ছুটি বরাদ্ধ করে উন্নয়ন যাত্রা বাধাগ্রস্থ করতে চায়না। যদি তাই হয় তাহলে বিভিন্ন ধর্মীয় সম্প্রদায়ের অধীকার রক্ষার সুন্দর বুলিগুলি বুঝি শুধু আমাদের দেশের মত অনুন্নত দেশেগুলোর জন্যেই। সেসেব দেশে মুসলিমরা .৬ ভাগ, ২.৮ ভাগ এমনকি প্রায় ১০ ভাগ হয়েও ছুটি পাননা কিন্তু আমাদের দেশেতো প্রায় .৫ ভাগও ছুটি ভোগ করেন। এতে কি আমাদের উন্নয়ন-যাত্রা বাধাগ্রস্থ হয়না?

তারপরেও এখানে আমার দাবী এটা নয় যে বাংলাদেশে অন্যান্য ধর্মালম্বীদের ছুটি কেড়ে নেওয়া হোক। বরং আমি চাই এসব তথাকথিত সভ্য দেশ অন্যকে উপদেশ দিতে আসার আগে নিজেরা যেন আমল করে। রামুর ঘটনায় তাদের উদ্বেগ লক্ষণীয়, আমরা কিছু মনে করিনা। কিন্তু একইভাবে কাশ্মীর, ফিলিস্তিন ইস্যু কেন প্রাধান্য পায়না? আমাদের মত নিরীহ দেশগুলো থেকে তারা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ঠিকই আদায় করে কিন্তু নিজেরা নিজেদের দেশে এ অধীকার নিশ্চিত করতে পারেনা।

0 টি মন্তব্য:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

ইমেইলে গ্রাহক হোন